আহতদের জন্য রক্ত চাইলেন অপূর্ব

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : রবিবার, জুন ৫, ২০২২ ১১:১৪:৫৮ পূর্বাহ্ণ

চলমান বার্তা ডেস্ক
চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম ডিপোতে আগুনের ঘটনার মাঝে ভয়াবহ বিস্ফোরণ হয়। এতেই মূলত হতাহতের সংখ্যা বেড়ে যায় কয়েকগুণ। এই বিস্ফোরণের জন্য প্রাথমিক ভবে ধারণা করা হচ্ছে যে, কনটেইনারে থাকা দাহ্য পদার্থ থেকেই এই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। কনটেইনারে হাইড্রোজেন পার অক্সাইড ছিল যা আগুনের তাপে বিস্ফোরিত হয়।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের কন্টেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণের ঘটনায় আহত রোগীদের জন্য রক্তের হাহাকার দেখা দিয়েছে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে।

বিশেষ করে এবি” পজেটিভ “ও” নেগেটিভ এবং “এ” নেগেটিভ রক্তের চাহিদা বেশি। স্বেচ্ছাসেবকরা প্ল্যাকার্ড হাতে নেগেটিভ রক্তের প্রয়োজন লেখা কাগজ নিয়ে হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন এবং রক্তের প্রয়োজন জানিয়ে রেডক্রিসেন্টের সদস্যরাও হ্যান্ডমাইকে একের পর এক ঘোষণা দিয়ে যাচ্ছেন। একইসঙ্গে আহতদের সাহায্যে চমেক হাসপাতালে শতশত স্বেচ্ছাসেবক ও সাধারণ মানুষও যোগ দিয়েছেন এবং বিনামূল্যেও ওষুধ বিতরণ করা হচ্ছে।

সেই আবেদনে সাড়া দিলেন জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব। তিনি তার ভ্যারিফাইড পেজে ঘটনাটি ঘটার কিছুক্ষণের মধ্যেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পর পর দুটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে প্রথমটিতে তিনি লেখেন, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে একটি কনটেইনার ডিপোতে রাত ১১টায় ভয়াবহ বিস্ফোরণ হয়েছে৷ কিছু হতাহতের খবর শোনা যাচ্ছে, আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক মানুষ। ঘটনার পরপরই আহত ব্যক্তিদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়েছে৷ আগুন এখনো নিয়ন্ত্রণের বাহিরে। অসংখ্য অ্যাম্বুলেন্স প্রয়োজন। চট্টগ্রামের সব কটি সরকারি/বেসরকারি হসপিটালের অ্যাম্বুলেন্স ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ হতে অতিদ্রুত সীতাকুন্ডে যেতে বলা হচ্ছে। চট্টগ্রাম হাসপাতালে আহতদের রক্তের প্রয়োজন হতে পারে ৷ আশেপাশের সবাই রক্ত দিতে প্রস্তুত থাকুন ৷ আল্লাহ সবাইকে হেফাজত করুন৷

তিনি পরের স্ট্যাটাসটিতে লেখেন, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ভয়াবহ বিস্ফোরণে কোন আহত ব্যক্তির জরুরী ভিত্তিতে রক্তের প্রয়োজন হলে কমেন্টে জানাবেন৷ আমি পেজে পোস্ট করে দিবো যাতে সেই রক্তের গ্রুপের কেউ গিয়ে সাথে সাথে রক্ত দিতে পারে৷

প্রসঙ্গত, বিস্ফোরণের পর এখনও পর্যন্ত আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আসেনি। তবে চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন এ ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। হতাহতের চিকিৎসায় চকবাজার মেডিকেল গেটের সামনের গলির ভেতরের হাসান ফার্মেসি নামের এক ওষুধের দোকান ইতিমধ্যেই বিনামূল্যে ওষুধ সরবরাহ করছে।

আরও পড়ুন : আহতদের প্রাণ বাঁচাতে এগিয়ে আসার আহ্বান তামিমের

জনপ্রিয়