ওয়ালটন হবে বাংলাদেশের অ্যাম্বাসেডর : ফরহাদ হোসেন

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শনিবার, মে ৪, ২০১৯ ৯:৩০:০৯ অপরাহ্ণ
Walton
ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শনের সময় ল্যাপটপ হাতে নিয়ে দেখছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

নিজস্ব প্রতিবেদক:
জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, ওয়ালটন আমাদের দেশীয় প্রতিষ্ঠান। তাদের তৈরি পণ্য বিশ্বমানসম্পন্ন। উচ্চমানের প্রযুক্তিপণ্য দিয়ে ওয়ালটন দেশের সুনাম বয়ে আনছে। ক্রিকেট যেমন বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং করছে। আমি বিশ্বাস করি একইভাবে দেশের আরেকটি অ্যাম্বাসেডর হবে ওয়ালটন। সরকারি কেনাকাটায় ওয়ালটনের মতো দেশীয় প্রতিষ্ঠান অগ্রাধিকার পাবে।

গত বৃহস্পতিবার গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী। দেশীয় প্রযুক্তিপণ্য উৎপাদন শিল্পের অভাবনীয় অগ্রগতি নিজ চোখে দেখার উদ্দেশ্যে ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন করেন তিনি।

কারখানা পরিদর্শন করে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, ওয়ালটন পণ্যের মানের ব্যাপারে কোনো আপোষ করে না। প্রযুক্তিগত উন্নয়ন করে যাচ্ছে। আমি তাদের কারখানা পরিদর্শন করে অভিভূত। তারা এখানে সুক্ষ্ম সুক্ষ্ম সব যন্ত্রাংশ পর্যন্ত তৈরি করছে। তাদের তৈরি পণ্য খুবই উচ্চমানের। যে কারণে ওয়ালটন দেশের মানুষ এবং সংস্কৃতির সাথে মিশে গেছে।

Walton
ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ডাস্ট্রিজে মোবাইল ফোন প্রোডাকশন দেখছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন

প্রতিমন্ত্রী জানান, তিনি নিজে ওয়ালটন পণ্য কেনেন এবং ব্যবহার করে খুবই সন্তুষ্ট। এ সময় তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে হলে প্রযুক্তিপণ্য উৎপাদন এবং তা রপ্তানির বিকল্প নেই।

দুপুরে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ওয়ালটন কারখানা কমপ্লেক্সে পৌঁছলে তাকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান এস এম নূরুল আলম রেজভী এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম আশরাফুল আলম।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গাজীপুরের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক দিদার-ই-আলম মোহাম্মদ মাকসুদ, কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাজী হাফিজুর আমিন, ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক আলমগীর আলম সরকার, ইউসুফ আলী, কর্নেল (অব.) এস এম শাহদাত আলম, গোলাম মুর্শেদ ও লিয়াকত আলী, মিডিয়া উপদেষ্টা এনায়েত ফেরদৌস প্রমুখ।

কারখানা প্রাঙ্গনে পৌঁছে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী প্রথমে ওয়ালটনের বিশাল কর্মযজ্ঞের ওপর নির্মিত ভিডিও ডক্যুমেন্টারি উপভোগ করেন। পরে তিনি ওয়ালটনের সুসজ্জিত প্রোডাক্ট ডিসপ্লে সেন্টার ঘুরে দেখেন।

এরপর প্রতিমন্ত্রী ওয়ালটনের বিশ্বমানের রেফ্রিজারেটর উৎপাদন প্রক্রিয়া সরেজমিনে পর্যবেক্ষণ করেন। পর্যায়ক্রমে তিনি ওয়ালটনের মেটাল কাস্টিং, কম্প্রেসর, এসএমটি প্রোডাকশন, পিসিবি, কম্পিউটার এবং মোবাইল ফোন ইত্যাদি উৎপাদন ইউনিট ঘুরে দেখেন।

এ সময় তিনি ওয়ালটন কারখানায় এপ্রিল মাসে সর্বোচ্চ (২ লাখ ৪ হাজার ৪৪৩ ইউনিট) ফ্রিজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের সাফল্য উৎযাপনে কেক কাটেন।

উল্লেখ্য, গাজীপুরের কালিয়াকৈরে প্রায় ৭০০ একর জায়গাজুড়ে স্থাপন করা হয়েছে ওয়ালটনের অত্যাধুনিক কারখানা। এখানে ফ্রিজ, টিভি, এসি, ল্যাপটপ, কম্পিউটার, মোবাইল ফোন, হোম ও ইলেকট্রিক্যাল অ্যাপ্লায়েন্স, মোল্ড-ডাই, লিফটসহ বিভিন্ন উচ্চমানের পণ্য তৈরি হচ্ছে। উৎপাদনের পাশাপাশি বিভিন্ন পণ্যের গবেষণা ও উন্নয়ন, মান নিয়ন্ত্রণ, আন্তর্জাতিক ব্যবসা ইউনিটসহ বিভিন্ন বিভাগ গড়ে তুলেছে। ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ লেখা বুকে নিয়ে ওয়ালটনের তৈরি আন্তর্জাতিক মানের পণ্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে।

আরও পড়ুন :এসি বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন উদ্‌যাপন করলো ওয়ালটন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

জনপ্রিয়