শিরোনাম

কোনাবাড়ীতে জমে উঠেছে ঈদের বাজার

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শুক্রবার, মে ৩১, ২০১৯ ১০:৩০:৫৪ অপরাহ্ণ
Konabari
ছবি: শহিদুল ইসলাম

মো.শহিদুল ইসলাম:
গাজীপুর মহানগর কোনাবাড়ী থানাধীন মার্কেটগুলোতে শেষ মুহূর্তে ঈদের কেনাকাটা জমে উঠেছে। ঈদকে সামনে রেখে মার্কেটগুলোতে এখন ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়, প্রতিবছর ভারতীয় সিরিয়ালের নামে পোশাকর জন্য আমাদের দেশে যেভাবে আত্মহত্যার প্রবণতা দেখা যেত, এবার বিপণি বিতান গুলোতে সেসব পোষাক নাই বললেই চলে। তারমধ্যে নারীদের জন্য নানা রকম বাহারি রংয়ের শাড়ি, থ্রি পিস, ফতুয়া ও ছেলেদের আকর্ষণীয় পাঞ্জাবি, শার্ট, প্যান্ট, বাচ্চাদের জন্য নানা ডিজাইনের পোশাক শোভা পাচ্ছে দোকানগুলোতে। পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন রকমের সুতি ও জর্জেটের থ্রিপিসও। ইতিমধ্যে ক্রেতা সামলাতে হকার্স মার্কেটের দোকানিরা অতিরিক্ত লোকও নিয়োগ দিয়েছেন, যাতে বিক্রি বেশি করা যায় আর ক্রেতার চাপ একটু সামলানোর জন্য।

ইতিমধ্যে রোজা শেষে দিকে চলে আসছে।বিভিন্ন মার্কেটগুলোর সামনে বেশি একটা ফুটপাত নাই, তবুও ফুটপাতে যে ক’টা দোকান আছে, সে কয়টা দোকানের ব্যবসায়ীরা দম ফেলার সুযোগ পাচ্ছেন না।এর ফলে ব্যবসায়ীদের দেখা গেছে কথা বলারও সময় পাচ্ছেন না। এদিকে যাদের টাকা আছে, যারা বিত্তবান, তাঁরা ঈদের কেনাকাটা করতে বেশিরভাগই সপরিবারে চলে যায় জয়দেবপুর,উত্তরায়। তবুও ক্রেতার অভাব নেই, উপচেপড়া ভিড়ে, কোথাও কোথাও হাঁটতেও কষ্ট হচ্ছে সাধারণ মানুষের, ফলে সৃষ্টি হচ্ছে রাস্তার যানজটও।

ঈদ উপলক্ষে সবচেয়ে কোনাবাড়ী হকার্স মার্কেটে ভিড় বেশি দেখা যাচ্ছে।বেশি ভীরের কারণ হলো,যেহেতু কোনাবাড়ী গার্মেন্টস এলাকা তাই স্বল্প আয়ের লোকজনই একটি বেশি।

কোনাবাড়ী আশেপাশের মার্কেট গুলোতে নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবারের সদস্যদের অনেকটাই স্বস্তির নিশ্বাস।এছাড়াও বর্তমান সময়ে গড়ে ওঠা বড়-বড় মার্কেটগুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষণীয়। বিশেষ করে পাল ফ্যাশন,মর্ডান টেইলার্স, স্বপ্নপুরী, মন্ত্রী মার্কেট, একতা টাওয়া, আনসার মার্কেট,রনু সুপার মার্কেট।

এদিকে কোনাবাড়ি বিসিক মোবাইল মার্কেটে,মোবাইল সামগ্রী কেনার উপচে পড়া ভিড় দেখা যাচ্ছে।বিসিক মার্কেটের এক দোকানী জানান, রমজানের মধ্যে সবচেয়ে বেশি কেনাকাটা হয়েছে আজ শুক্রবার, আশা করি বাকি রমজান গুলোতে বেচা কিনা ভালো হবে।

কোনাবাড়ী মার্কেটগুলোর পাশাপাশি আছে অনেক নামিদামি টেইলার্সও। রোজার শুরু থেকে টেইলার্সগুলোতে অর্ডার নিলেও এখন অনেক টেইলার্সেই অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে।

এর কারণ, যদি সময়মত ডেলিভারি না দিতে পারে, তাই। বর্তমানে টেইলার্সের দোকানে রাত দিন নির্ঘুম সময় পার করছেন দর্জি শ্রমিকেরা, তাদের সাথে পাল্লা দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে বালিশের কভার, বেডকভার তৈরির দর্জিরাও।

সবমিলিয়ে চলছে এক অন্যরকম আনন্দ-উল্লাস। এতো ব্যয়বহুল খরচের মধ্যেও ছোট বড় সাবার মুখে হাসি, এই হাসি যেন সেই ঈদের আনন্দের হাসি। কোনাবাড়ী জুতার দোকান গুলোতে দেখা যাচ্ছে কেনাকাটা অনেক ভিড়।

কোনাবাড়ী থানার ওসি অপারেশন সৈয়দ রাফিউল (রাফি) জানান, ঈদকে সামনে রেখে কোনাবাড়ি আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশের বিশেষ টিম কাজ করছে। তাছাড়াও মার্কেটে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হয়েছে এবং বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের টহল টিম কাজ করছে।

আরও পড়ুন:অবশেষে পৈত্রিক বাড়ি ফিরে পেলেন শহিদুল

Leave a Reply

Your email address will not be published.

সর্বশেষ

জনপ্রিয়