গাজীপুরের বোর্ডবাজারে সন্ত্রাসী কায়দায় বাড়ী দখলের অভিযোগ

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৩, ২০১৯ ৯:০১:২০ অপরাহ্ণ
Terror
রুস্তম মন্ডল। ছবি: সংগৃহীত

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুর মহানগরীর গাছা থানাধীন ৩৫নং ওয়ার্ড বাদেকলমেশ্বর এলাকায় একাধিক ব্যক্তির বাড়িঘর সন্ত্রাসী কায়দায় পরিবারের সদস্যদের মারধর ও লুটের অভিযোগ উঠেছে রুস্তমের বিরুদ্ধে।

গত ১৬ মার্চ রুস্তম মন্ডল ও তার লোকজন নিয়ে শহিদুল মন্ডলের বাড়িতে হামলা চালিয়ে তাদেরকে মারধর করে। এ সময় নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটে নেওয়ার অভিযোগ করেন শহিদুল। তাদের হাতে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত ও আহত হন শহিদুলের দশম শ্রেণির স্কুল পড়ুয়া মেয়ে শারমিন জাহান মীম (১৬) ও তার বোনের মেয়ে রুমা (২২)। তাদেরকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছিল।

ভুক্তভোগী শহিদুল জানান, গাছা থানার এস আই ফোরকানের সহযোগিতায় রুস্তম ও তার দলবল জোরপূর্বক আমাকে বাসা থেকে বের করে দিয়ে বাসায় তালা ঝুলিয়ে দেয়। এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দিতে গেলে পুলিশ আমাদের অভিযোগ গ্রহন করেননি।তবে অনেক দিন ঘুরিয়ে একটি সাধারণ ডাইরি নিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমি সন্ত্রাসীদের হুমকির মুখে পরিবার নিয়ে আতংকে জীবন যাপন করছি।এমন কি আমার মেয়ের লেখা পড়া বন্ধ হয়ে যাচ্ছে, ভয়ে সে স্কুলে যেতে পারেনা ।

ওই এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা খলিলুর রহমানের ছেলে ইয়াছিন জানান, সন্ত্রাসী রুস্তম আমার বাবাকে মারধর করে আমার পৈত্রিক বসতবাড়ি দখল করেছে। এব্যাপারে থানায় মামলা করেছি। এ মামলায় তিনি জামিনে আছেন এবং প্রতিনিয়ত আমাকে ভয় ভীতি দেখিয়ে আসছে।

এলাকার আরেক ভুক্তভোগী, সন্ত্রাসী রুস্তমের ভয়ে নাম প্রকাশ করার শর্তে বলেন, তিনি জানান কিছু দিন আগে আমার মার্কেটের দোকানে জোরপূর্বক তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে।  ভুক্তভোগী আরও বলেন রুস্তমের নামে একাধিক মাদক মামলাসহ থাকা সত্ত্বেও তাকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে না। সে রীতিমতো পুলিশের সাথে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

এ ব্যাপারে রুস্তম মণ্ডলের সাথে মুঠোফোন যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমার ব্যপারে শহিদুল যা বলেছে তা মিথ্যা বানোয়াট। তবে শহিদুল যে বাড়ি ভোগদখল করে খাচ্ছে সেটি শহিদুলের বাড়ি না।এই বাড়িটি মালিক হচ্ছে শাহ আলম নামের এক ব্যক্তি। আমি শুধু পুলিশের সহযোগিতায় শাহ আলমকে বাড়ি দখল করে দিয়েছি।

কিন্তু শহিদুল বলছেন, এই জমি আমার পৈত্রিক বসতবাড়ি আমিই ভোগ করছি। এই জমি নিয়ে কোর্টের তিনটি রায় আমার পক্ষে থাকা সত্ত্বেও পুলিশের এস আই ফোরকান ও সন্ত্রাসী রুস্তম আমাকে আমার বাসার মালামাল সিজার লিস্ট করে, আমার স্বাক্ষর রেখে মালামাল ভিতরে রেখে আমাকে খালি হাতে বের করে দেন।

তিনি আরও বলেন, আমি আপনাদের মাধ্যমে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছি। আমার বাড়ি ঘর থাকার পরেও আমি নিজবাড়ীতে থাকতে পারছিনা । তাই মানবেতর জীবন যাপন করে আসছি আমার পরিবার নিয়ে । এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী পরিবারটি দ্রুত সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এব্যপারে গাছা থানার এস আই ফোরকানের সাথে মুঠোফোনে কথা বলে জানা যায়, ঐ জমির মালিক শাহ আলম, আমি আরেক জনের বাড়ি দখল করে দেব কেন? তিনি শহিদুলকে অভিযুক্ত করে গাছা থানায় মামলা করে। তাই আমি শহিদুলকে গ্রেফতার করি এর চেয়ে বেশি কিছু আমি জানি না।
আমার নামে দখল করে তালা মেরেছি এমন কথাটি সত্যি নয়, এটি একটি মিথ্যা বানোয়াট ভিত্তিহীন। অথচ রুস্তম মণ্ডল বলেছেন পুলিশের সহযোগিতার কথা।

শহিদুল আরও বলেন, গাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসনের কাছে বারবার বিষয়টি জানানোর পরেও তিনি কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। এব্যাপারে ওসি ইসমাইল জানান, আমার কাছে এখন পর্যন্ত কোনো লিখিত অভিযোগ আসেনি, অভিযোগ আসলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে জিএমপি অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আজাদ মিয়া জানান, বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন: কাশিমপুরে গাঁজা ব্যবসায়ী আটক

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

জনপ্রিয়