‘গোল্ডেন বুট’ ও ‘গোল্ডেন বল’ লড়াইয়ে এগিয়ে যারা

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শনিবার, ডিসেম্বর ১৭, ২০২২ ১২:১৯:০৮ অপরাহ্ণ

চলমান বার্তা ডেস্ক:
অন্তিম লগ্নে পৌঁছানো কাতার বিশ্বকাপ নিয়ে চলছে, নানা সমীকরণ ও জল্পনাকল্পনা। কে চ্যাম্পিয়ন হবে, শুধু এতটুকুতে সীমাবদ্ধ না, ফুটবল ভক্তদের এ সমীকরণ। টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার ‘গোল্ডেন বুট’ কে পাবেন, কেই বা পাবেন সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার গোল্ডেন বল! প্রতিপক্ষের আক্রমণ রুখে দেওয়া সেরা গোলরক্ষকের গোল্ডেন গ্লোভসই বা কার হাতে উঠবে।

এবারের আসরে প্রতিপক্ষের জালে সবচেয়ে বেশি বল জড়িয়ে গোল্ডেন বুটের দৌড়ে সবার ওপরে রয়েছেন, আর্জেন্টাইন খুদে যাদুকর লিওনেল মেসি ও ফরাসি সেনসেশন কিলিয়ান এমবাপ্পে। দুজনেরই এই বিশ্বকাপে করেছেন পাঁচটি করে গোল।

পাঁচ গোল করতে মেসি খেলেছেন ছয়টি ম্যাচ। শুধু নিজেই গোল করে ক্ষান্ত হননি, সতীর্থকেও বল জালে জড়াতে সহযোগিতা করেছেন তিনবার। স্বীকৃতি হিসেবে ছয় ম্যাচের চারটিতে পেয়েছেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

অন্যদিকে মেসির সমান ম্যাচে সমান গোল করা এমবাপ্পে সতীর্থকে দিয়ে গোল করিয়েছেন ২টি গোল। ম্যাচসেরা হয়েছেন তিনবার।

মেসি-এমবাপের পর গোল্ডেন বুটের দৌড়ে রয়েছেন আর্জেন্টিনার হুলিয়ান আলভারেজ ও ফ্রান্সের অলিভিয়ের জিরুদ। তাদের দুজনেরই ঝুলিতে রয়েছে চারটি করে গোল। ফাইনালে জোড়া গোল করলে, মেসি-এমবাপ্পেকে টপকে সোনার বুট ছিনিয়ে নিতে পারবেন আলভারেজ বা জিরুদ।

গোল্ডেন বুটের পাশাপাশি বিশ্বকাপে সেরা পারফর্মেন্সের জন্য গোল্ডেন বলের দৌড়ে সবার ওপরে মেসির নাম। গোল, সুযোগ তৈরি, সহায়তা ও প্লে-মেকিংয়ের মাধ্যমে দলকে ফাইনালে তুলতে কারিগরের ভূমিকা পালন করেন আর্জেন্টাইন প্রাণ-ভোমরা।

গোল ও সহায়তার কল্যাণে গোল্ডেন বলের লড়াইয়ে রয়েছেন এমবাপ্পেও। তবে এবারের বিশ্বকাপে ফ্রান্সের মধ্যমণি আঁতোয়ান গ্রিজমান। পুরো আসরে প্লে-মেকিংয়ে দুর্দান্ত দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন, এ অ্যাতলেটিকো ফরোয়ার্ড। দরকারে রক্ষণে নামা গ্রিজম্যান গোল্ডেন বলের দৌড়ে, এমবাপের চেয়ে খানিক এগিয়েই থাকবেন।

বিশ্বকাপ শিরোপার স্বপ্ন শেষ হলেও, মরক্কোর সুফিয়ান আমরাবত ও ক্রোয়েশিয়া লুকা মদ্রিচের সামনে কিঞ্চিত সুযোগ থাকছে, গোল্ডেন বল জেতার।

বিশ্বকাপের মঞ্চে গোলপোস্টের নীচে বীরত্বের প্রমাণ দেওয়া সেরার তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন, আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্তিনেজ। দারুণ সব সেভের পাশাপাশি, কোয়ার্টার ফাইনালে টাইব্রেকারে প্রতিপক্ষের দুটি পেনাল্টি শট ঠেকিয়ে দেন এমি।

ফাইনালে না উঠলেও, গোল্ডেন গ্লোভসের দাবিদার ক্রোয়েশিয়ার গোলরক্ষক ডমিনিক লিভাকোভিচ ও মরক্কোর ইয়াসিন বুনু। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে, দাবি শক্ত করার সুযোগ পাচ্ছেন এই দুই স্টার। ফরাসি গোলবারের অতন্দ্র প্রহরী হুগো লরিস তালিকায় থাকলেও দুটি ম্যাচ না খেলায় কিছুটা পিছিয়ে দিয়েছে তাকে।

আরও পড়ুন : রোনালদোকে বসিয়ে রাখায় অনুতপ্ত নন পর্তুগিজ কোচ

জনপ্রিয়