চাঁদাবাজি বন্ধ হলে ৩০০ টাকায় গরুর মাংস বিক্রি সম্ভব : মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : মঙ্গলবার, মে ৭, ২০১৯ ১১:০৫:০১ পূর্বাহ্ণ
Bief
ফাইল ফটো

অনলাইন ডেস্ক:
রোজায় গরু ও খাসির মাংসের দাম কেজি প্রতি যথাক্রমে ৫২৫ ও ৭৫০ টাকায় বেঁধে দিয়েছে রোজার মাসের জন্য ঢাকা দক্ষিণের সিটি কর্পোরেশন। কোন দোকানি এর চেয়ে বেশি দাম রাখলে তার শাস্তি হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণের মেয়র সাইদ খোকন।

মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম বলেছেন, চাঁদাবাজি বন্ধ হলে ৫২৫ টাকার স্থলে ৩০০ টাকায় গরুর মাংস বিক্রি সম্ভব। তিনি বলেন, সীমান্ত থেকে গাবতলী পর্যন্ত আসার পথে সরকারি নির্ধারিত খাজনার চেয়ে বহু গুণ বেশি খাজনা ইজারাদারেরা অবৈধভাবে আদায় করছে বলেই মূলত গরুর মাংসের দাম অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে।

আলম বলেন, গত তিন বছরে বাংলাদেশে মাংসের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে। চাঁদাবাজরা যদি পশুর ওপর চাঁদাবাজি বন্ধ করে, তাহলে কেজি প্রতি ৩০০ টাকায়ও মাংস বিক্রি করা সম্ভব।

আরও পড়ুন : কণ্ঠশিল্পী সুবীর নন্দী মারা গেছেন

পশুর ওপর সরকার নির্ধারিত খাজনার চেয়ে বেশি চাঁদা আদায় করা গোষ্ঠীকে ঠেকাতে না পারার বেশ কয়েকটি কারণ উল্লেখ করলেও রবিউল আলম মনে করেন, মূলত “সিটি কর্পোরেশনের আন্তরিকতার অভাবেই” বন্ধ করা যাচ্ছে না চাঁদাবাজি।

কর্পোরেশন চাইলে এই চাঁদাবাজি এক মিনিটে বন্ধ করতে পারে। কিন্তু যেহেতু এখানে কোটি কোটি টাকার স্বার্থ জড়িত, তাই আন্তরিকতার অভাব আর কিছু দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের কারণে চাঁদাবাজি বন্ধ করা যাচ্ছ না।

আলম ধারণা করছেন, চাঁদাবাজির সাথে জড়িত ইজারাদাররা সরাসরি রাজনীতির সাথে যুক্ত না হলেও তাদের সহযোগিতায় রাজনৈতিকভাবে ক্ষমতাশালীরা থাকতে পারেন।

গাবতলী গরুর হাট কর্তৃপক্ষের সরকারি অফিস অবৈধ দখলদারদের নিয়ন্ত্রণে থাকা মাংসের দাম বাড়ার পেছনে আরেকটি অন্যতম কারণ বলে উল্লেখ করেন আলম।

গাবতলী গরুর হাট ইজারা নেওয়ার শর্ত হলো, প্রতিটি গরুর সরকার নির্ধারিত খাজনা হবে ১০০ টাকা। কিন্তু এই শর্ত না মেনে ইজারাদাররা অবৈধভাবে গরু প্রতি চার বা পাঁচ হাজার টাকাও আদায় করেন বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এভাবে একটি গরু শহরের ভেতরে তিনটি হাটে স্থানান্তরিত হলেই গরুর দাম বেড়ে যায় প্রায় ১৫ হাজার টাকা। যার প্রভাব সরাসরি এসে পড়ে মাংসের দামের ওপর।

গাবতলী হাটের নিয়ন্ত্রণ পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হলে এবং সরকার কর্তৃক নির্ধারিত খাজনা আদায় বাস্তবায়িত হলে অতি সত্ত্বর মাংসের দাম কমে আসবে বলে জানান আলম। যদি সরকার কর্তৃক নির্ধারিত খাজনা গ্রহণের বিষয়টি বাস্তবায়ন করা হয়, তাহলে আগামীকাল থেকেই কেজি প্রতি মাংসের দাম ৭০ তেকে ৭৫ টাকা কমে আসবে।

আরও পড়ুন : বিশ্বকাপ ক্রিকেটে মার্সেলের ‘সেরা দামে সেরা টিভি’ অফার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

জনপ্রিয়