চীনে বিধ্বস্ত উড়োজাহাজের কেউ বেঁচে নেই

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : রবিবার, মার্চ ২৭, ২০২২ ১০:২১:৩০ পূর্বাহ্ণ

চলমান বার্তা ডেস্ক
চীনের গুয়াংঝি অঞ্চলের পাহাড়ি এলাকায় ১৩২ আরোহী নিয়ে বিধ্বস্ত হওয়া উড়োজাহাজের সবাই নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে চীন। গতকাল সোমবার চীনের পক্ষ থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয় বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

চীনের রাষ্ট্রীয় ইস্টার্ন এয়ারলাইনসের ওই উড়োজাহাজটি গত সোমবার ১৩২ আরোহী নিয়ে গুয়াংঝি অঞ্চলের উঝৌয়ের পাহাড়ি এলাকায় বিধ্বস্ত হয়। এরপরই সেটির ধ্বংসাবশেষ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে। আগে থেকেই অবশ্য উদ্ধারকারীরা বলছিলেন, আরোহীদের কারও বেঁচে থাকার কোনো লক্ষণ নেই।

চীনা গণমাধ্যম বলছে, চীনের সিভিল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (সিএএসি) ডেপুটি ডিরেক্টর হু জেনজিয়াং গতকাল শনিবার সাংবাদিকদের জানান, দুর্ঘটনাস্থল থেকে প্রাণের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। উড়োজাহাজের ১২৩ জন যাত্রী ও নয় জন ক্রু নিহত হয়েছে।

এর আগে উদ্ধারকারী দল বলেছিল, তারা ১২০ জন আরোহীর ডিএনএ শনাক্ত করেছে। এ ছাড়া দলটি এখনও উড়োজাহাজটির দ্বিতীয় ব্ল্যাক বক্স বা ফ্লাইট ডেটা রেকর্ডারের সন্ধান করছে।

এর আগে প্রথম ব্ল্যাক বক্স—ককপিট ভয়েস রেকর্ডারটি গত বুধবার পাওয়া যায়। সেটি পরীক্ষার জন্য বেইজিংয়ে পাঠানো হয়েছে।

উড়োজাহাজটি গত সোমবার স্থানীয় সময় বেলা ১টা ১১ মিনিটে চীনের ইউনান প্রদেশের কুনমিং শহর ছেড়ে যায়। বেলা ৩টা ৫ মিনিটে সেটির হংকংয়ের সীমান্তবর্তী গুয়াংডং প্রদেশের গুয়াংজু শহরে অবতরণের কথা ছিল।

বাণিজ্যিক ফ্লাইটের তথ্য সরবরাহকারী সুইডেনভিত্তিক ওয়েবসাইট ফ্লাইটরাডার-২৪-এর তথ্য অনুযায়ী, বোয়িং ৭৩৭-৮০০ মডেলের উড়োজাহাজটি ছয় বছরের পুরোনো। কুনমিং ছেড়ে যাওয়ার পর সেটি ২৯ হাজার ১০০ ফুট উচ্চতায় উড়ছিল। এর মাত্র দুই মিনিট ১৫ সেকেন্ড পরই সেটি ৯ হাজার ৭৫ ফুট উচ্চতায় নেমে আসে। আরও ২০ সেকেন্ড পর উড়োজাহাজটি নেমে আসে তিন হাজার ২২৫ ফুটে। এরপর সেটির অবস্থান শনাক্ত করা যায়নি।

উদ্ধারকারী এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে চীনের কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, উড়োজাহাজটি বিধ্বস্তের পর গাছপালায় আগুন ধরে যায়। আঞ্চলিক ফায়ার সার্ভিস বিভাগের বরাত দিয়ে চীনা সংবাদমাধ্যম পিপলস ডেইলি জানিয়েছে, ধ্বংসস্তূপের মধ্যে জীবিত কাউকে পাওয়া যায়নি।

নিরাপত্তার দিক দিয়ে চীনের এয়ারলাইনসগুলোর সুনাম রয়েছে। সর্বশেষ বড় দুর্ঘটনা ঘটেছিল ১২ বছর আগে।

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং দ্রুত তদন্ত করে এ দুর্ঘটনার কারণ বের করার নির্দেশ দিয়েছেন। একই সঙ্গে উড়োজাহাজ চলাচলে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বলেছেন তিনি।

দুর্ঘটনার কবলে পড়া উড়োজাহাজটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িং এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে উড়োজাহাজটি বিধ্বস্তের খবর তাদের নজরে এসেছে। এ–সংক্রান্ত আরও তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা চলছে।

আরো পড়ুন : রাশিয়ার দখল থেকে বেশ কিছু এলাকা ইউক্রেনের পুর্নদখল

জনপ্রিয়