জালিয়াতির মাধ্যমে এমপিওভুক্ত হয়ে ৩৩ বছর যাবৎ চাকরি করছেন আইয়ুব আলী

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বৃহস্পতিবার, মে ১৬, ২০১৯ ১০:০৩:৩২ অপরাহ্ণ
Citing
ছবি : সংগৃহীত

রেজা চৌধুরী:
সম্পূর্ণ জাল জালিয়াতির মাধ্যমে ইবতেদায়ী ক্বারী পদের পরিবর্তে সহকরি শিক্ষক পদে চাকরি নিয়ে এমপিওভুক্ত হয়েছেন পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের মমিনপুর গ্রামের ‘মমিনপুর রজ্জবিয়া দাখিল মাদ্রাসা’র ক্বারী মো. আইয়ুব আলী। যার ইনডেক্স নং ৩৬৮২৫৮, জাতীয় পরিচয় পত্র নম্বর ৭৮০৩৯৮৮৬১২০৩। ১৯৯৬ সালের মে মাসে তিনি সত্য গোপন করে মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে এমপিওভুক্ত হয়ে বেআইনিভাবে সরকারি টাকা আত্মসাৎ করে আসছেন।

জানা গেছে, ক্বারী মো. আইয়ুব আলী ইবতেদায়ী ক্বারি পদে নিয়োগ নিলেও তার এ সংক্রান্ত কোনো সনদপত্র নেই।

শুধু তাই না, জাতীয় পরিচয়পত্রে তার জন্ম তারিখ ১০ এপ্রিল ১৯৭৬ উল্লেখ থাকলেও চাকরির নিয়োগ পত্রে তার জন্ম তারিখ লেখা আছে ১ নভেম্বর ১৯৮৫। তিনি চাকরিতে যোগ দেন ১৯৮৬ সালের ১ জানুয়ারি। অর্থাৎ চাকরিতে যোগদানকালীন সময়ে তার বয়স ছিল মাত্র ৯ বছর ৬ মাস। যা কোনো অবস্থায়ই বাংলাদেশের চাকরি বিধিমালার আওতায় পড়ে না। এবং সনদ জালিয়াতি এবং জন্ম তারিখ গোপন করে চাকরি নেয়া ও দেয়া দেশের প্রচলিত আইনে দ-নীয় অপরাধ।

অথচ এমন এক মিথ্যা তথ্যের উপর ভিত্তি করে একজন ব্যক্তি কীভাবে ৩৩ বছর যাবৎ চাকরি করছেন সেটাই বিস্ময়কর।

শঠকারী ক্বারী মো. আইয়ুব আলীর আপন ভাগিনা মাওলানা মো. নুরুজ্জামান বর্তমানে ঐ মাদ্রাসায় সিনিয়র মৌলভী হিসেবে কর্মরত আছেন। বিষয়টি জানার পর তিনি প্রতিকার চেয়ে ২০১৬ সালের ২৬ এপ্রিল বাউফল সহকারী জজ আদালত, পটুয়াখালী একটি মামলা দায়ের করেন, যার নং দেং মোং নং ৬১/২০১৬।

এছাড়া ২০১৮ সালের ১৪ এপ্রিল প্রতারক আইয়ুব আলীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) বরাবর আরেকটি আবেদন করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত আইয়ুব আলী আইডি কার্ডের জন্ম তারিখ ভুল হয়েছে স্বীকার করে বলেন, বিষয়টি কোর্ট দেখবে। এছাড়া নিয়োগ নিয়ে অনিয়ম হলে শিক্ষা কর্মকর্তা ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন :টঙ্গীতে শিশু ধর্ষণ চেষ্টাকারী কিশোর আটক

Leave a Reply

Your email address will not be published.

জনপ্রিয়