তাড়াশে সহযোগীদের নিয়ে স্ত্রীকে হত্যা, শ্বশুর-শাশুড়ি আটক, স্বামী পলাতক

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২ ৫:০৪:০০ অপরাহ্ণ

মোঃ ফারুক হোসেন প্রামানিক; স্টাফ রিপোর্টার
সিরাজগঞ্জের তাড়াশে নাসিমা খাতুন (২২) নামে এক গৃহবধূকে জোরপূর্বক গ্যাস ট্যাবলেট সেবন ও শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী সুমন (২৬) ও সহযোগীদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় গৃহবধূর শ্বশুর ও শাশুড়িকে আটক করেছে পুলিশ।
শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ভোর রাতে উপজেলার মাধাইনগর ইউনিয়নের চক ঝুরঝুরি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সকালে নিহত গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার ও শ্বশুর সরোয়ার হোসেন এবং শাশুড়ি ফিরোজা বেগমকে আটক করে পুলিশ।নিহত গৃহবধূ নাসিমা খাতুন একই উপজেলার বেত্রাসিন গ্রামের গহের সরকারের মেয়ে ও চক ঝুরঝুরি গ্রামের সুমনের স্ত্রী।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সাত/আট বছর আগে সুমনের সঙ্গে বিয়ে হয় নাসিমার।তাদের সংসারে দু-সন্তানের জন্ম হয়। সম্প্রতি শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সঙ্গে নাসিমার দ্বন্দ্ব চলছিল। এ অবস্থায় সুমন কিছুদিন আগে নাসিমাকে চাকরির জন্য ঢাকায় নিয়ে যান। শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বিকেলে তারা ঢাকা থেকে ফিরে আসেন গ্রামের বাড়িতে ।

শুক্রবার দিনগত রাত আড়াইটার দিকে বাড়ি থেকে প্রায় ৩শ মিটার দূরে ভ্যাবড়া পুকুরপাড়ে নাসিমাকে নিয়ে যায় সুমন ও তার তিন সহযোগী। পুকুরপাড়ে তাকে প্রথমে শ্বাসরোধে ও পরে জোরপূর্বক গ্যাস ট্যাবলেট সেবন করিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। এ সময় স্থানীয় সমেজ আলী শব্দ পেয়ে বাইরে বের হন। তিনি বাড়ির লোকজনকে ডেকে ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই সুমন ও তার সহযোগীরা নাসিমাকে অর্ধমৃত অবস্থায় রেখে পালিয়ে যায়।

পরে গ্রামবাসী এসে তাকে উদ্ধার করে স্বামীর বাড়িতে নিয়ে গেলেও তার শ্বশুর-শাশুড়ি বাড়ির গেট খোলেনি। এ অবস্থায় অর্ধমৃত নাসিমা বলেন, তার স্বামী ও অপরিচিত তিনজন লোক তাকে খুন করার চেষ্টা করেছে। এর কিছু পর মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন তিনি। তার মৃত্যুর পর গ্রামবাসী শ্বশুর-শাশুড়িকে অবরুদ্ধ করে রেখে পুলিশে খবর দেন।

তাড়াশ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নূরে আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, স্বামী সুমন ও তার তিন সহযোগী মিলে পুকুরপাড়ে নিয়ে নাসিমাকে হত্যা করেছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গৃহবধূর শ্বশুর সারোয়ার হোসেন ও শাশুড়ি ফিরোজা বেগমকে আটক করা হয়েছে।

আরও পড়ুন :সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ী নারী ফুটবলার আঁখির বাবাকে পুলিশের হুমকি

 

জনপ্রিয়