ধর্মের সঙ্গে সংস্কৃতির সংঘাত নয় : প্রধানমন্ত্রী

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বুধবার, এপ্রিল ১৩, ২০২২ ৫:২১:২৫ অপরাহ্ণ
ফাইল ফটো

চলমান বার্তা ডেস্ক
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ধর্মের সঙ্গে অনেকেই সংস্কৃতির সংঘাত সৃষ্টি করতে চায়। এটা মোটেই ঠিক নয়। আমরা এটাই বলি- ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। কাজেই উৎসব আমরা সবাই এক হয়ে পালন করব।

বুধবার (১৩ এপ্রিল) নবনির্মিত ৮টি জেলা শিল্পকলা একাডেমি ভবনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।

কুষ্টিয়া, খুলনা, জামালপুর, নারায়ণগঞ্জ, পাবনা, মানিকগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও রংপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি ভবনের উদ্বোধন ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় প্রতিটি জেলার জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকেও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন। দেশবাসীকে নববর্ষ ও ঈদের আগাম শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, সংস্কৃতিচর্চার বিকাশে দেশের প্রতিটি উপজেলায় সাংস্কৃতিক কেন্দ্র তৈরি করা হবে। লোকজ সংস্কৃতি রক্ষার পাশাপাশি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সংস্কৃতিচর্চাকে আরও বিকশিত করার লক্ষ্য নিয়ে সরকার কাজ করছে। কারণ, এগুলো আমাদের ঐতিহ্য, এগুলো আমরা ভুলব না। কিন্তু আমরা সামনের দিকেও এগিয়ে যাব। আধুনিক যুগের যত সংস্কৃতি সেটাও আমরা রপ্ত করব।

শেখ হাসিনা বলেন, পঁচাত্তর সালের ১৫ আগস্ট থেকে প্রায় ২১ বছর বাংলাদেশ অন্ধকার যুগে কাটিয়েছে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পরে আমাদের সংস্কৃতি, ঐতিহ্য ও মুক্তিযুদ্ধের স্লোগান জয় বাংলা ফিরে পেয়েছি। আমরা বাঙালি, নিজেদের সংস্কৃতি রয়েছে, সেটা যেন আরও বিকশিত ও উজ্জীবিত হয় সেদিকে কাজ করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সিনেমা আমাদের দেশের মানুষের বিনোদনের একটা অবলম্বন ছিল। যেটা পর্যায়ক্রমিকভাবে, আসলে প্রযুক্তির কারণে হোক, এটা বন্ধ হয়ে গেছে। আমি মনে করি, আমাদের প্রতিটি জেলায় উপজেলায় আবার সিনেমা হলগুলো তৈরি করা উচিত। সিনেমা হলের সঙ্গে শুধু সিনেমা হল না সিনেপ্লেক্স অর্থাৎ সিনেমা হলে সঙ্গে শপিং মলসহ সবকিছুই করতে পারেন।

এ জন্য অর্থ বরাদ্দ রাখা হয়েছে জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, পুরোনো সিনেমা হলগুলো ভেঙে আবার নতুনভাবে তৈরি করে, সেখানে মানুষের বিনোদনের ব্যবস্থা করতে পারেন। এই লক্ষ্যে আমরা কিন্তু এক হাজার কোটি টাকার একটা বিশেষ বরাদ্দ রেখেছি। যারা পুরোনো সিনেমা হল ভেঙে নতুন সিনেমা হল তৈরি করবেন, তারা এখান থেকে বরাদ্দ পাবেন। এবং আরও নতুন নতুন সিনেমা হল যারা করতে চাইবেন তাদেরকেও এখান থেকে কিন্তু টাকা দেওয়া হবে।

সবাইকে পহেলা বৈশাখের শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে পহেলা বৈশাখ আমরা উদযাপন করি। এই একটা উৎসবে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলে, আমরা সকল বাঙালি এক হয়ে কিন্তু এই পহেলা বৈশাখ উদযাপন করি। যেখানে সকলের একটা চমৎকার মিলন কেন্দ্র হয়। আমাদের প্রবাসীরাও এই পহেলা বৈশাখ উদযাপন করেন।

সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবুল মনসুর। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী।

আরো পড়ুন : জাতিসংঘ মহাসচিবের আমন্ত্রণ গ্রহণ করলেন প্রধানমন্ত্রী

জনপ্রিয়