বাংলাদেশের শ্রমিক ও শ্রমিক আন্দোলন

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বুধবার, মে ১, ২০১৯ ৯:৩৭:১৫ পূর্বাহ্ণ
Labour

রেজা চৌধুরী:
বাংলাদেশে শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের প্রশ্ন উঠলেই সবার আগে মনে পড়ে পাটকল শ্রমিকদের কথা। একসময় নারায়ণগঞ্জে আদমজী পাটকলের শ্রমিকদের যে প্রভাব ছিল সেটি এখন অনেকটা রূপকথার মতো। ১৯৭০ -৮০’র দশকে দেশের বিভিন্ন জায়গায় শ্রমিক ধর্মঘটে জনজীবন স্থবির হয়ে যেত ।

শ্রমিক রাজনীতির ধরণ পরিবর্তিত হতে থাকে ১৯৯০ সালের পর থেকে। ব্যাপক অর্থনৈতিক সংস্কারের পথ ধরে রাষ্ট্রায়ত্ত খাত সংকুচিত হয়ে বেসরকারি খাত যত বিস্তৃত হতে থাকে শ্রমিক আন্দোলনেও পরিবর্তন আসতে থাকে।

দেশের অর্থনৈতিক ধারা পরিবর্তনের সাথে শ্রমিক আন্দোলনও পাল্টে যেতে থাকে।সরকারি খাতের ভূমিকা যত কমেছে বেসরকারি খাতের ভূমিকা তত বৃদ্ধি পেয়েছে। বেসরকারি খাত চলে আসার পরেও সেখানে শ্রমিকদের নিজেদের মতো করে সংগঠন করা বা সংগঠনের মাধ্যমে অধিকার জানানো – সেটি না হওয়ার কারণে প্রায়শই তাদের রাস্তায় গিয়ে আন্দোলন করে দাবি আদায় করতে হয়।

১৯৯০ সালের পর থেকে বিভিন্ন সেক্টর বা খাত ভিত্তিক শ্রমিকদের তৎপরতা দেখা যায়। যেমন গার্মেন্টস শ্রমিক, পরিবহন শ্রমিক, পাটকল শ্রমিক। তাদের কেন্দ্রীয় একক কোন সংগঠন নেই।

১৯৮০’র দশকে শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ বা স্কপ নামের একটি কেন্দ্রীয় সংগঠন ছিল। মূলত সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলনের পটভূমিতে সেটি গদে উঠেছিল। কারণ শ্রমিক সংগঠনগুলো তখন ভেবেছিল সামরিক শাসকের বিদায় না হলে শ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠা হবে না। এই সংগঠনটি এখনও কাগজে কলমে বিদ্যমান। কিন্তু কোন তৎপরতা বা ভূমিকা দেখা যায়না।

১৯৯০ সালের পর থেকে যেসব রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় এসেছে তাদের অনুগত শ্রমিক সংগঠনগুলো স্কপের কার্যকারিতা নষ্ট করেছে। তারা ক্ষমতায় এসে স্কপকে নানাভাবে অন্যদিকে ডাইভার্ট করে দিয়েছে। ফলে স্কপের যে বিপ্লবী চরিত্র সেটা আস্তে-আস্তে ধ্বংস হয়ে যায়।

বাংলাদেশ গত দুই দশকের বেশি সময় ধরে গার্মেন্টস শ্রমিকদের অধিকার কিংবা আন্দোলনের বিষয়টি সবার সামনে আসে। বিভিন্ন সময় বেতন-ভাতার দাবিতে বিচ্ছিন্নভাবে শ্রমিকরা রাস্তায় নামে।

২০১৩ সালে রানাপ্লাজা ধসে ১১শর বেশি শ্রমিকের মৃত্যুর পর আইন সংশোধন করে গার্মেন্টস খাতে শ্রমিকদের ট্রেড ইউনিয়ন করার অধিকার দেয়া হয়। শ্রমিকরা স্বতঃস্ফূর্ত রাস্তায় নামলেও সেজন্য তাদের অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

যেসব শ্রমিক তাদের অধিকার আদায়ের জন্য রাস্তায় নামে তাদের চাকরি থেকে ছাটাই করা হয় এবং অনেকক্ষেত্রে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। শ্রমিকদের মনে ভীতি সঞ্চার করার জন্য এসব পদক্ষেপ নেয় হয়।

আশির দশক পর্যন্ত পাট এবং বস্ত্রকল শ্রমিকরা সরকারের উপর চাপ তৈরি করতে পারলেও এখন আর সেটি নেই। এখন সেটি চলে গেছে ভিন্ন সেক্টরে।

গার্মেন্টস মাত্র তিন থেকে চার শতাংশ শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়নের সাথে জড়িত। সেদিক থেকে সিংহভাগ শ্রমিক এর সঙ্গে নেই। ট্রেড ইউনিয়নের সাথে সম্পর্কিত শ্রমিকের সংখ্যা বিবেচনা করলে, শতকরা হার বিবেচনা করলে পরিবহন শ্রমিকদের ক্ষেত্রে শ্রম সংগঠনগুলোর সাথে অংশগ্রহণ সবচেয়ে বেশি। বিশ্লেষকরা মনে করেন, বিভিন্ন সময় রাস্তায় নেমে আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায় কার্যকরী পন্থা হিসেবে বিবেচনা করে শ্রমিকরা। কারণ অনেক ক্ষেত্রেই আলোচনার টেবিলে দরকষাকষির সুযোগ থাকেনা। তথ্য সূত্র বিবিসি।

আরও পড়ুন: যে কারণে শিক্ষিত ও ধনী পরিবারের সন্তানরা জঙ্গিবাদে জড়াচ্ছে

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

জনপ্রিয়