বিতর্ক ঠেলে মুক্তি পাচ্ছে শাহরুখের পাঠান

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শনিবার, জানুয়ারি ২১, ২০২৩ ৭:০১:৪০ অপরাহ্ণ

চলমান বার্তা অনলাইন ডেস্ক:
বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খানের সর্বশেষ সিনেমা পাঠান মুক্তি পাচ্ছে আগামী সপ্তাহে। কিন্তু তার আগেই গত কয়েক সপ্তাহ জুড়ে ভারতীয় গণমাধ্যমের শিরোনাম হচ্ছে এ সিনেমাটি।

মিস্টার খানের সিনেমাকে নিয়ে আগ্রহ থাকাটা বিস্ময়কর কিছু নয়, কারণ তিনি ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতাদের একজন।

দেশে ও বিদেশে অসংখ্য ভক্তদের প্রিয় এই অভিনেতাকে অনেক সময় ভারতের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হিসেবেই বিবেচনা করা হয়, যিনি তার সিনেমার চেয়েও বেশ জনপ্রিয়।তার ভক্তরা তাকে কিং খান কিংবা কিং অব বলিউড বলতে ভালোবাসেন।

আর ‘পাঠান’ সিনেমা নিয়ে তিনি চলচ্চিত্রে আবার ফিরলেন প্রায় চার বছরের বিরতির পর।মাদক রাখার একটি ভুয়া মামলায় ছেলে আরিয়ান খানের গ্রেফতারসহ ব্যক্তি ও পেশাগত জীবনের নানা সংকট পেরিয়ে চলচ্চিত্রের পর্দায় ফিরলেন ৫৭ বছর বয়সী এই অভিনেতা।

কিন্তু এই বিরতিও মিস্টার খানকে নিয়ে উৎসাহ আরও বাড়িয়েছে যা তার সিনেমার প্রতিও আগ্রহ তৈরি করে দিয়েছে।এ সিনেমায় তার সাথে আছেন ভারতের অন্যতম বড় তারকা দীপিকা পাডুকোন ও জন আব্রাহাম।

গত ডিসেম্বরে যখন পাঠান সিনেমার প্রমোশনার গানগুলো রিলিজ করা শুরু হয় তখন থেকেই এটি নিয়ে শোরগোল চলছে সামাজিক মাধ্যমে।আর গত সপ্তাহে যখন ট্রেলার আসলো তখন ভক্তরা রীতিমত ঝাঁপিয়ে পড়েছে।

ইউটিউবে ইতোমধ্যেই এটি দেখা হয়েছে ৪৯ মিলিয়ন বার। টুইটারে যে হিন্দি ট্রেলার দিয়েছিলেন মিস্টার খান সেটি দেখেছে প্রায় চল্লিশ লাখ মানুষ। ব্যাপক ভাবে দেখছে তেলেগু ও তামিল ভার্সনও।

এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র, আরব আমিরাত, জার্মানি ও অস্ট্রেলিয়াতে অগ্রিম টিকেট বিক্রিতে ব্যাপক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। ছবির গল্পকে ভক্তরা মিলাচ্ছেন জেমস বন্ড ও মিশন ইম্পসিবল সিনেমাগুলোর সাথে।

এতে মূলত একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হামলা করে ভারতকে ধ্বংস করতে চাইছে। কর্তৃপক্ষ হিমশিম খাচ্ছে আর পাশাপাশি সময়ও চলে যাচ্ছে। ফলে দেশের বিপর্যয়ের মুখে পড়ে দেশের ভবিষ্যৎ।

সে কারণে পরিস্থিতি মোকাবেলায় নিয়ে আসতে হয় এ কাজে দেশের সেরা ব্যক্তিকেই।গুপ্তচরের ভূমিকায় থাকা নায়ক দক্ষতার সাথেই শত্রুদের মোকাবেলা করেন আর এর মধ্যেই ঘটে নানা ঘটনা।আড়াই মিনিটের ট্রেলার ভক্তদের ব্যাপক আলোড়ন তুলেছে এবং তারা সিনেমাটি দেখার জন্য মুখিয়ে আছে।

কিন্তু শুরু থেকেই এ সিনেমা নিয়ে ভারতে ব্যাপক বিতর্ক চলছে।লেখক ও চলচ্চিত্র সমালোচক শৈবাল চট্টোপাধ্যায় বলছেন অভিনেতার ধর্মীয় পরিচয়ের কারণেই সাম্প্রদায়িক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে আলোচনা হচ্ছে।

তিনি বলেন কয়েক বছর আগেও বলিউডের সব কিছু বিনোদনমূলক হিসেবেই বিবেচনা করা হতো। কিন্তু এখন নানা মেরুকরণ হচ্ছে।

পাঠান- একটি মুসলিম নাম, যাকে নিয়ে কট্টর হিন্দুত্ববাদীরা সমালোচনা করছে। ওই সিনেমায় একটি গানের চিত্রায়নে অভিনেত্রী দীপিকা পাডুকোন কেন গেরুয়া রংয়ের ছোট পোশাক পরে মুসলিম একজন নায়কের (শাহরুখ খানের) সঙ্গে নেচেছেন এবং হিন্দুত্বের অবমাননা করেছেন – সোশ্যাল মিডিয়াতে হিন্দুত্ববাদীরা এই ধরনের অভিযোগ তুলে আসছেন বেশ কিছুদিন ধরেই।

এই গান সিনেমা থেকে বাদ না দিলে ছবিটিকে নিষেধাজ্ঞা দেয়ারও দাবি ওঠে।। প্রতিবাদকারীরা মিস্টার খানের কুশপুত্তলিকাও পুড়িয়েছে এবং ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার অভিযোগ করে এটি গড়িয়েছে আদালতেও।

সামাজিক মাধ্যমে ছবিটি বয়কটের ডাক দেয়া হয়েছে এবং চলছে প্রচারণা। ফলে ছবির প্রচারণার চেয়ে সংশ্লিষ্টদের ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে এসব মোকাবেলাতেই। মিস্টার খান দুবাই গেছেন গত সপ্তাহের শুরুতে এবং সেখানে সিনেমাটির ট্রেলার দেখানো হয়েছে।

মিস্টার খানের ভাবমূর্তি থেকে শুরু করে ত্রিশ মিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ – সবকিছুই এখন চ্যালেঞ্জের মুখে। তবে অনেকে মনে করছেন নেতিবাচক প্রচারণাই সিনেমাটিকে সফল কর যাচ্ছে।

লেখক শ্রায়ানা ভট্টাচার্য বলছেন শাহরুখ খানের ভক্তরা কখনোই তাকে ধর্ম কিংবা রাজনীতির হিসেবে টেনে আনেনি।আর শৈবাল চট্টোপাধ্যায় বলছেন “মানুষ হলে গিয়ে পাঠান দেখবে কারণ তারা মিস্টার খানকে অনেক দিন ধরেই মিস করছিল”। তার মতে এ সিনেমায় শাহরুখ খান নিজের ইমেজ ভেঙ্গে নতুন করে এসেছেন। “তার কোন ভয় নেই এবং হারানোর কিছু নেই”।

আরও পড়ুন : প্রথমবার বড় পর্দায় ছেলে শুভকে দেখলেন মা

জনপ্রিয়