মোংলায় নৌযান শ্রমিকদের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শনিবার, নভেম্বর ১৯, ২০২২ ৭:৫৮:০১ অপরাহ্ণ

মাসুদ রানা, মোংলা প্রতিনিধি :
সর্বনিম্ন মজুরি ২০ হাজার টাকা নির্ধারণসহ ১০ দফা দাবীতে মোংলায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন নৌযান শ্রমিকেরা। শনিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় পৌর শহরের শ্রমকল্যাণ সড়কের বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন ও বাংলাদেশ লঞ্চ লেবার এসোসিয়েশনের আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে বের হয় দাবী আদায়ের এ বিক্ষোভ মিছিল। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পৌর মার্কেট চত্বরে অনুষ্ঠিত হয় বিক্ষোভ সমাবেশ। এ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নৌযান শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক আনোয়ার হোসেন চৌধুরী, সদস্য ইলিয়াছ হোসেন, মাইনুল হোসেন মিন্টু, বাবু হালদার, বাদশা হাওলাদার, আলআমিন হোসেন, আবু তাহের হোসেন ও মোঃ মনজু হাওলাদার।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, মালিকপক্ষ ও সরকার আগামী ২৬ নভেম্বরের মধ্যে তাদের ১০ দফা দাবী মেনে না নিলে ওইদিন মধ্যরাত (১২টা ১মিনিট) থেকেই সারাদেশে নৌযান শ্রমিকেরা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি পালন শুরু করবেন।

খুলনার নৌযান শ্রমিক নেতা রাশেদ খান মেনন বলেন, সারাদেশে সাড়ে তিন হাজার নৌযানে প্রায় ৪ লাখের অধিক শ্রমিক রয়েছেন। আমাদের এ দাবী মানা না হলে নৌযান শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে সারাদেশে লাগাতার কর্মবিরতি পালন করা হবে।

মোংলার লাইটারেজ শ্রমিক ইউনিয়নের নেতা মোঃ মাইনুল ইসলাম মিন্টু বলেন, সর্বনিম্ন মজুরী ২০ হাজার টাকা নির্ধারণ, কর্মস্থলে ও দুর্ঘটনায় মূত্যুজনিত কারণে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ, প্রভিডেন্ট ফান্ড ও নাবিক কল্যাণ তহবিল গঠন, ভারতগামী শ্রমিকদের ল্যান্ডিং পাস প্রদাণ, বাল্কহেডে রাত্রীকালীন চলাচলের উপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিলকরণ, বাংলাদেশের বন্দর সমূহ থেকে পণ্য পরিবহন নীতিমালা ১০০ ভাগ কার্যকর করা, চট্টগ্রাম বন্দরে প্রোতাশ্রয় নির্মাণ ও চরপাড়া ঘাটের ইজারা বাতিল, চট্টগ্রাম থেকে পাইপ লাইনে জ্বালানী তেল সরবরাহের চলমান কার্যক্রম বন্ধ করা, নৌপথে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজী ও ডাকাতি নিমূল করা এবং দুর্ঘটনাকবলিত জাহাজ, নাবিকদের দ্রুত উদ্ধার ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করার দাবীতে শনিবার বিক্ষোভের মধ্যদিয়ে মালিকপক্ষকে হুশিয়ারী/আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে। ২৬ নভেম্বর বেঁধে দেয়া সয়মসীমার মধ্যে মালিকপক্ষ এ দাবী মেনে না নিলে আমরা সারাদেশে নৌযান কর্মবিরতি পালন করবো। মালিকপক্ষ যদি দাবী না মানে তাহলে তাদের নৌযান বুঝে নিক, আমরা মাটি কেটে ও দিনমজুরের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করবো। সর্বোচ্চ বেতন সাড়ে ৭ হাজার টাকায় এখন আর পরিবার চলেনা। তাই মালিকপক্ষ হয় দাবী মেনে নিবে তা না হলে নৌযান বুঝে নিবে, বেতন বৃদ্ধিসহ ১০ দফা দাবী না মানা হলে আমরা নৌযান ছেড়ে লাগাতার কর্মবিরতিতে যাবো। দাবী আদায়ের এ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে দেশের বিভিন্নস্থানের ৫ শতাধিক নৌযান শ্রমিক অংশ নেন।

আরও পড়ুন :জলবায়ু বিপর্যয়ের কবল থেকে সুন্দরবন রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন

জনপ্রিয়