রিজার্ভের টাকা গিলে ফেলিনি, জনকল্যাণে ব্যয় করেছি : প্রধানমন্ত্রী

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শনিবার, নভেম্বর ১২, ২০২২ ৪:৪০:৪৯ অপরাহ্ণ
গণভবন থেকে আজ শনিবার সকালে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি : সংগৃহীত

চলমান বার্তা ডেস্ক:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রিজার্ভের টাকা আমরা গিলে ফেলিনি, জনকল্যাণে ব্যয় করেছি ।

আজ শনিবার সকালে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের নির্মাণকাজের উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে গত সেপ্টেম্বরের শুরুতে ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের জন্য খসড়া ঋণ চুক্তির অনুমোদন দেন প্রধানমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ঢাকায় নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব ড. আহমেদ কায়কাউস। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

রিজার্ভ থেকে কেউ পয়সা তুলে নিয়ে চলে যায়নি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার দেশের একটা অর্থও অপচয় করে না। প্রতিটি অর্থ ব্যয় করা হয় মানুষের স্বার্থে, কল্যাণে, ভালোর জন্য।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি নেতা তারেক জিয়া মানি লন্ডারিং কেসে সাত বছরের কারাদণ্ড পেয়েছে। মানি লন্ডারিং যাদের অভ্যাস, তারা ওইটাই জানে যে, টাকা বুঝি সব নিয়েই যেতে হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে যোগাযোগ, যাতায়াত, আমদানি সব কিছু প্রায় বন্ধ ছিল। যখন যোগাযোগটা খুলে গেছে তখন আমাদের আমদানি করা, বিশেষ করে করোনাভাইরাস ও ইউক্রেন-রাশিয়ার কারণে মুদ্রাস্ফীতি বেড়েছে। যে মন্দা দেখা দিয়েছে, তার আঘাতটা তো আমাদের দেশে এসে পড়েছে। আজকে রিজার্ভের টাকা থেকে আমদানি ব্যয় মেটাতে হচ্ছে, পাশাপাশি আমরা বিনাপয়সায় ভ্যাকসিন দিয়েছি। করোনা পরীক্ষাও বিনা পয়সায় করেছি। পৃথিবীর কোনো উন্নত দেশও বিনা পয়সায় টেস্টিংও করেনি, ভ্যাকসিনও দেয়নি। আমরা নগদ টাকা দিয়ে ভ্যাকসিন কিনি, এরপরে কিছু অনুদান পেয়েছি।

রিজার্ভ ব্যয়ের বিবরণ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, খাদ্যদ্রব্যের দাম সারা বিশ্বে বেড়ে গেছে, জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে গেছে, ভোজ্যতেল, গম, ভুট্টা, ডাল, যা কিছু আমাদের আমদানি করতে হচ্ছে দাম বেড়েছে। চাল আমরা উৎপাদন করছি, খাদ্যে আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ, তারপরে আমাদের কিছু আমদানি করতে হয়। বন্যায় যখন ফসল নষ্ট হলো তখন চাল আমদানি করতে হয়েছে। জনগণের খাদ্য কেনা, ক্যানসারের ওষুধ কেনা, জনগণের মঙ্গলের জন্য আমাদের করতে হয়েছে। সার, জ্বালানি তেল, বিদ্যুৎ আমাদের ক্রয় করতে হচ্ছে। আমাদের রিজার্ভের টাকা দিয়ে আমরা বিমান ক্রয় করেছি। নদী ড্রেসিং আমাদের নিজেদের রিজার্ভের টাকা দিয়ে করেছি। কিছু কিছু বিনিয়োগ করেছি এই কারণে, আমরা যদি অন্য দেশের ব্যাংক থেকে লোন নেই, আমাকে সুদসহ সেই ডলার পরিশোধ করতে হয়।

চীনা এক্সিম ব্যাংক এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের জন্য ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার বা ১০ হাজার ২২৬ দশমিক ৫৩ কোটি টাকার ঋণের অনুমোদন দিয়েছে। মোট ১৬ হাজার ৯০১ কোটি টাকার প্রকল্প ব্যয়ের ৬৫ শতাংশ দেবে চীন। ২৪ কিলোমিটার দীর্ঘ এই এক্সপ্রেসওয়ে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সঙ্গে নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কের আবদুল্লাহপুর, আশুলিয়া, বাইপাইল এবং ইপিজেডকে যুক্ত করবে।

তবে এ এক্সপ্রেসওয়ে ব্যবহারের ক্ষেত্রে যানবাহনগুলোকে টোল দিতে হবে। প্রকল্পের নথি অনুযায়ী, এই এক্সপ্রেসওয়ে চালু হলে দেশের ৩০ জেলার মানুষ দ্রুত ও সহজে রাজধানীতে প্রবেশ ও বের হতে পারবে। এর মাধ্যমে দেশের মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপি ০ দশমিক ২১ শতাংশ বাড়বে বলেও আশা করা হচ্ছে।

অপরদিকে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণকাজও চলমান আছে। এই এক্সপ্রেসওয়ের সঙ্গে ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুতুবখালী পয়েন্টে যুক্ত হবে।

আরও পড়ুন : ক্ষমতায় থাকতে লুটপাট করেছে বিএনপি : প্রধানমন্ত্রী

জনপ্রিয়