সবচেয়ে বেশি টেস্ট খেলবে যে তিনটি দেশ

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বুধবার, আগস্ট ১৭, ২০২২ ৬:৩৫:৪৮ অপরাহ্ণ

চলমান বার্তা ডেস্ক:
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল আজ বুধবার ২০২৩ থেকে ২০২৭ মৌসুমের জন্য ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রাম প্রকাশ করেছে। এই সময়ে ৭৭৭টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ হবে। এর মধ্যে ১৭৩টি টেস্ট, ২৮১টি ওয়ানডে এবং ৩২৩টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ হবে। যা আইসিসি ইভেন্টগুলোর অংশ।

মার্চের মাঝামাঝি থেকে মে মাস পর্যন্ত কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাহ হবে না। এই সময়ে বিসিসিআই আইপিএল আয়োজন করবে। পাকিস্তান পিএসএল একই সময়ে আয়োজন করবে।

ক্রিকবাজের খবরে জানা গেছে, ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে বর্ডার-গাভাস্কার সিরিজে প্রতিটি সিরিজে টেস্টের সংখ্যা চার থেকে পাঁচে উন্নীত হবে। শেষবার দুই দল পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে মুখোমুখি হয়েছিল ১৯৯২ সালে। এই চক্রে প্রতি বছর অস্ট্রেলিয়ার ভারত ও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে একটি সিরিজ (সব ফরম্যাটে) খেলার কথা রয়েছে। এই সময়ে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও ভারত সবেচেয়ে বেশি টেস্ট খেলবে।

এফটিপিতে আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের দুটি চক্রে রয়েছে, চারটি আইসিসি ইভেন্ট ছাড়াও, ভারতে ৫০ ওভারের বিশ্বকাপ রয়েছে। ২০২৪ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও যুক্তরাষ্ট্র টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আয়োজক হবে। ২০২৫ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি পাকিস্তানে আয়োজন হবে। ভারত ও শ্রীলঙ্কা যৌথভাবে ২০২৬ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আয়োজক হবে এবং ২০২৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ে এবং নামিবিয়ায় ৫০ ওভারের বিশ্বকাপ হবে।

ভারত বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে ২০২৩-২৫ ​​চক্রে বাংলাদেশ, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে হোম সিরিজ এবং অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর করবে।

ভারত ও পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সিরিজে একে অপরের বিপক্ষে খেলবে না। পাকিস্তান আসন্ন এফটিপিতে ১২টি সদস্য দেশের মধ্যে ১০টির বিরুদ্ধে লড়াই করতে প্রস্তুত। পাকিস্তান চার বছরে ২৭টি টেস্ট, ৪৭টি ওয়ানডে এবং ৫৬টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে। ২০২৩ এশিয়া কাপ ছাড়াও দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ডকে নিয়ে একটি ত্রিদেশীয় সিরিজ আয়োজন করবে তারা।

২০২৩-২৪ মৌসুমে আফগানিস্তানের ছয়টি টেস্ট খেলার কথা রয়েছে। তিনটি ঘরের মাঠে, জিম্বাবুয়ে ও আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে এবং তিনটি অ্যাওয়ে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। পরের মৌসুমে বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ড সফরে যাবে। পরে ভারত, অস্ট্রেলিয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং আয়ারল্যান্ডে টেস্ট খেলার কথা রয়েছে।

অন্যদিকে আয়ারল্যান্ড পরবর্তী চক্রে ১৪টি টেস্ট খেলবে। আফগানিস্তান ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৪টি, বাংলাদেশের বিপক্ষে ৩টি এবং শ্রীলঙ্কা, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে একটি করে টেস্ট খেলবে তারা।

আইসিসির মহাব্যবস্থাপক ওয়াসিম খান বলেছেন, ‘আগামী চার বছর ধরে এই এফটিপি তৈরির জন্য আমাদের সদস্যদের ধন্যবাদ জানাই। তিনটি প্রাণবন্ত ফরম্যাট রয়েছে। আইসিসি গ্লোবাল ইভেন্ট, শক্তিশালী দ্বিপাক্ষিক এবং ঘরোয়া ক্রিকেট— এই এফটিপি সব ক্রিকেটকে বিকাশের অনুমতি দেবে।’

আরও পড়ুন : খুদে ভক্তের স্বপ্ন পূরণ করলেন সাকিব

জনপ্রিয়